টেক জ্ঞান

৫জি নেটওয়ার্ক চালু করেছে টেলিটক সিম

সম্প্রতি টেলিটক ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসে রচনা করলো আরো একটি নতুন ইতিহাস। ১২ ডিসেম্বর ২০২১ রোজ রবিবার এই দিন বাংলাদেশে প্রথমবার ৫জি নেটওয়ার্ক চালু করে টেলিটক। দেশের ৬টি স্থানে ৫জি নেটওয়ার্ক পরীক্ষামূলকভাবে চালু করেছে টেলিটক।

কোথায় পাওয়া যাবে ৫জি নেটওয়ার্ক?

প্রথমবার যে ৬টি স্থানে পাওয়া যাবে ৫জি নেটওয়ার্ক তানিন্মে উল্লেখ করা হলো।

  • বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থান গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া
  • সংসদ ভবন এলাকায়
  • প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়
  • সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধ
  • ধানমন্ডির ৩২ নম্বর
  • বাংলাদেশ সচিবালয়

৫জি নেটওয়ার্কের আওতায় খুব শীগ্রয় রাজধানী ঢাকার ২০০টি স্থানকে আনবে বলে আশাবাদী টেলিটক। একটি বিষয় সকলের জেনে রাখা উত্তম ২০১৮ সালের জুলাই মাসে ঢাকায় ৫জি প্রযুক্তির পরীক্ষা প্রথম সম্পন্ন করা হয়েছিলো।

কবে থেকে সকল সিমে ৫জি নেটওয়ার্ক সমর্থন করবে?

আর্টিকেলের শুরুতেই বলেছি যে সম্প্রতি ৫জি নেটওয়ার্ক ১২ ডিসেম্বর রোজ রবিবার পরীক্ষামূলকভাবে ৫জি নেটওয়ার্ক চালু করা হয়েছে। অন্যান্য অপারেটর বাণিজ্যিকভাবে ব্যাপক পরিসরে ৫জি নেটওয়ার্ক চালু করার আগে এই তরঙ্গ নিলামে উঠানো হবে এবং নিলাম হয়ে যাবার পর প্রায় সব অপারেটর ৫জি নেটওয়ার্ক চালু করতে পারবে।

৫জি তরঙ্গ কবে নিলাম হবে?

৫জি নেটওয়ার্ক ফ্রিকোয়েন্সি নিলাম হওয়ার পর সকল অপারেটর তরঙ্গ ক্রয় করে সকল অপারেটরদের গ্রাহকদের জন্য ৫জি নেটওয়ার্ক উন্মুক্ত হবে। ২০২২ সালের মার্চ মাসে এ নিলাম হবে বলে জানিয়েছে কর্তিপক্ষ সুতরাং আশা করা যায় উক্ত তথ্যটি যদি সত্যঠয় তাহলে ২০২২ সালের মার্চ মাসের মধ্যেই সকল অপারেটর ৫জি নেটওয়ার্ক নিয়ে হাজির হবে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন ৫জি নেটওয়ার্ক?

টেলিটকের এ ৫জি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার জন্য আপনার একটি টেলিটক সিম প্রয়োজন হবে সে সাথে ৫জি নেটওয়ার্ক সমর্থন করে এমন একটি স্মার্টফোন প্রয়োজন হবে।

শুধু সিম এবং ৫জি নেটওয়ার্ক সমর্থন করে তাহলেই যে আপনি ৫জি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারবেন তা কিন্তু নয়।

সম্পূর্ণভাবে ৫জি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার জন্য আপনাকে যা করতে হবে, ৫জি নেটওয়ার্ক চালু আছে এমন জায়গায় অবস্থান করতে সে সাথে একটি বিশেষে খবর হলো টেলিটক সিমের ৩-পার্টে বিভিক্ত সবুজ সিমগুলো অর্থাৎ ন্যানো সিমগুলিতে ৫জি নেটওয়ার্ক সমর্থন করবে বলে টেলিটক কাস্টমার কেয়ার থেকে এ নিউজটি পাওয়া গেছে এবং আশা করা যায় টেলিটকের সে সব ৪জি সিমগুলিতেও ৫জি নেটওয়ার্ক চলবে।

কিভাবে বুঝবেন আপনার ফোনে ৫জি চলবে?

৫জি নেটওয়ার্ক চালানোর জন্য উপরের আলোচনায় যে সকল বিষয়ের কথা বলা হয়েছে যেসব বিষয় সম্পূর্ণভাবে ঠিক থাকার সত্যেও আপনার ফোনে যে কারণে ৫জি নেটওয়ার্ক নাও চলতে পারে।

অনেক সময় দেখা যায় আমাদের অনেকের ফোন ৪জি থাকার সত্যেও ৪জি নেটওয়ার্ক পাওয়া যায় না এর কারণ হচ্ছে আমাদের ফোনে ২জি,৩জি,৪জি,৫জি নেটওয়ার্ক নির্বাচন করার জন্য একটি অপশন দেয়া থাকে সুতরাং যদি আপনার ফোনের মাঝে ঐ সেটিং ৩জি অথবা ৪জি সেট করা থাকে তাহলে আপনি ৫জি নেটওয়ার্ক পাবেন না তাই যদি আপনি ৫জি নেটওয়ার্ক উপভোগ করতে চান তাহলে উল্লেখিত সকল কাজগুলি সঠিকভাবে করতে হবে।

কি সুবিধা পাবেন ৫জি ব্যবহার করে?

৩জি,৪জি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে আপনি যে পরিমাণ ইন্টারনেট স্পিড পেতেন তার দিগুন স্পিড পাবেন ৫জি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে। আপনি সেকেন্ডে প্রায় ২০গিগাবিট ইন্টারনেট স্পিড পাবেন ৫জি নেটওয়ার্ক সমর্থন করে। ইন্টারনেটের এই স্পিড প্রায় অনেকগুলি কাজের উপর নির্ভর করে সচারচর দেখা গিয়েছে ৫জি নেটের স্পিড ১.৫জিপিপিএস হয়েছে এবং গড়ে এই স্পিড হতে পারে ১০০এমবিপিএসের চেয়ে অনেক বেশি।

আপনি যদি আরো সহজ ভাষায় চান তাহলে বলতে হবে ৪জি নেটওয়ার্কের চেয়ে ৫জি নেটওয়ার্কের স্পিড নিন্মে ১০গুন বা তার বেশি। ৪জি ইন্টারনেট দিয়ে যদি একটি ভিডিও ডাউনলোড করতে সময় নেয় ২ঘন্টা তাহলে ৫জি নেতওয়ার্ক দিয়ে সে ভিডিও ডাউনলোড করতে সময় লাগবে মাত্র ১০ সেকেন্ড।

বিশেষ কথাঃ এই আর্টিকেলটি পড়ে যদি আপনার মনে কোন প্রকার প্রশ্ন জাগে তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমরা আপনার প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব এবং যদি আপনি কখনো ৫জি নেটওয়ার্কের স্পিড বা এর সাধ গ্রহণ করে থাকেন তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন আপনার সে অনুভূতি সমপর্কে।

ধন্যবাদ

জাহিদুল ইসলাম

শিখতে ভালোবাসি :)

সম্পর্কিত আর্টিকেল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button

অ্যাডব্লকার ডিটেক্টেড

আপনি সম্ভবত অ্যাডব্লকার ব্যবহার করছেন। আমাদের সাইট ভিজিট করতে চাইলে অবশ্যই অ্যাডব্লকার ডিজেবল করতে হবে।