অনলাইন আয়

ইউটিউব থেকে ইনকাম ২০২২ – সংক্ষিপ্ত ইউটিউব গাইডলাইন

আমরা অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার অনেক পথ খুঁজি। আপনি যদি কম কষ্টে প্রতিমাসে একটা ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে চান তাহলে ইউটিউব হতে পারে এরকম একটি আয়ের পথ।

ইউটিউব একটি ভিডিও দেখার প্লাটফর্ম। প্রতিদিন কোটি কোটি মানুষ ইউটিউবে আসে ভিডিও দেখে বিনোদন নেওয়ার জন্য, অনেকে আসে কিছু শিখতে আবার অনেকে আসে কোন তথ্য খুঁজে বের করার জন্য। তবে হ্যাঁ আপনি যদি একটু চেষ্টা করেন তাহলে এই ইউটিউব থেকে প্রতিমাসে একটা ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

ইউটিউবে একটা চ্যানেল দেখাশুনা করার জন্য প্রতিদিন এক দুই ঘণ্টা এর বেশি সময় লাগে না তাই আপনি চাইলে আপনার পড়াশুনা কিংবা চাকরির পাশাপাশি ইউটিউবিং করতে পারেন। ইউটিউবিং একটি প্যাসিভ ইনকাম এর রাস্তা, মানে ইউটিউবে একটি ভিডিও আপলোড করলে সেটা মানুষ যতদিন দেখবে ততদিন ইনকাম হবে।

তো আপনি যদি ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে চান আর এই সম্পর্কে ভালোভাবে না জানেন তাহলে আজকের আর্টিকেল টি আপনার জন্য তাই কোথাও না গিয়ে সম্পূর্ণ আর্টিকেল টি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

প্রথমত সবার মনে একটা প্রশ্ন আসে তা হলো, ইউটিউব থেকে ইনকামটা আসে কিভাবে বা কত ভিউতে কত টাকা?আসলে ইউটিউব ভিউ এর উপর কোন টাকা দেয় না। আপনার ভিডিওতে যদি কোটি কোটি ভিউ হয় তাহলেও ইউটিউব আপনাকে কোন টাকা দিবে না।

তাহলে ইউটিউব থেকে ইনকামটা আসে কিভাবে? ইউটিউব থেকে ইনকাম আসে মূলত অ্যড এর মাধ্যমে আপনারা নিশ্চয়ই দেখেছেন ইউটিউব এ ভিডিও দেখার সময় নানা জিনিস এর আ্যড চলে আসে ইউটিউব এর ইনকামটা মূলত এই আ্যড থেকে আসে।

ইউটিউব প্রতি আ্যড এর জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট পরিমাণ একটা অর্থ প্রদান করবে। তবে কি পরিমাণ অর্থ প্রদান করবে সেটা নির্ভর করে আপনার ভিডিওতে দেখানো আ্যড এ ক্লিকের উপর। তো এজন্য বলা যায় না একটা ভিডিওতে কত ইনকাম বা প্রতি ভিউতে কত টাকা ইনকাম করা যায়।

ইউটিউব থেকে ইনকাম করার জন্য আপনার চ্যানেলে আ্যড দেখাতে হবে আর এই আ্যড দেখানোর জন্য আপনার চ্যানেলে গুগল এডসেন্স চালু করা থাকতে হবে।

গুগল আ্যডসেন্স কি?

গুগল আ্যডসেন্স হলো একটি আ্যড নেটওয়ার্ক এবং গুগল এর একটি সার্ভিস তার মাধ্যমে ব্লগ সাইট ও ইউটিউব চ্যানেলে আপনি আ্যড দেখাতে পারবেন এবং তার বিনিময়ে গুগল আ‌্যডসেন্স আপনাকে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদান করবে।

আরো অনেক আ্যড নেটওয়ার্ক আছে কিন্তু তার মধ্যে গুগল আ‌্যডসেন্স সবচেয়ে জনপ্রিয় ও বেশি অর্থ প্রদান করে থাকে।
আপনার চ্যানেলে গুগল আ্যডসেন্স চালু করতে হলে আপনাকে কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। প্রথমত আপনার নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে এবং তাতে আপনার নিজের তৈরি করা ইউনিক কন্টেন্ট থাকতে হবে।

আপনার চ্যানেলে গুগল এডসেন্স চালু করতে হলে আপনার চ্যানেলে এক হাজার সাবস্ক্রাইবার ও চার হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম থাকতে হবে। এই শর্ত পূরণ করলেই আপনি আপনার চ্যানেল এর জন্য গুগল এডসেন্স এর আবেদন করতে পারবেন এবং গুগল আপনার চ্যনেলটি রিভিউ করার পর আপনার চ্যানেলে আ্যড দেখানো শুরু করবে এবং প্রতি এড ভিউ এর জন্য তখন আপনাকে অর্থ প্রদান করা শুরু করবে।

যখন আপনার গুগল এডসেন্স একাউন্টে একশত ডলার জমা হবে তখন আপনি ব্যংক কিংবা চেক এর মাধ্যমে আপনার উপার্জন করা অর্থ তুলতে পারবেন। তবে হ্যাঁ কেবল একশত ডলার হলেই আপনি টাকা তুলতে পারবেন।

এবার কথা হলো আপনি কোন বিষয়ের উপর ভিডিও বানাবেন। ইউটিউবে ভিডিও বানানোর জন্য অনেক ক্যাটাগরি আছে আর আপনি যে ক্যাটাগরি নিয়ে কাজ করেন না কেন আপনি যদি ইউনিক কন্টেন্ট ও কোয়ালিটি সম্পন্ন কন্টেন্ট ইউটিউবে আপলোড করতে পারেন তাহলে আজ না হয় কাল আপনার ভিডিওতে ভিউ হবেই। তবে ইউটিউবিং করতে হলে আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ধরে লেগে থাকতে হবে।

আপনি যদি কোন একটা নির্দিষ্ট জিনিস ভালো করে পারেন তাহলে আপনি ইউটিউবে এসে অন্য সবাইকে সেটা শিখাতে পারেন। এগুলোকে টিউটোরিয়াল ভিডিও বলে। ধরুন আপনি ভালো রান্না পারেন তো আপনি সেটা ইউটিউব এর মাধ্যমে অন্য সকলকে শেখাতে পারেন বা আপনি আনকমন জিনিস পারেন সেটা ইউটিউব এর মাধ্যমে অন্য সবাইকে শেখাতে পারেন। ইউটিউবে এরকম ভিডিওর প্রচুর ডিমান্ড রয়েছে।

আপনি  ইউটিউবে ফানি ভিডিও বানাতে পারেন। আজকাল দেখা যায় লোক ফানি ভিডিও প্রচুর দেখে। তো আপনি ফানি ভিডিও বানিয়ে লোককে বিনোদন দিতে পারেন। এছাড়া আপনি যদি ভালো কথা বলতে পারেন ও লোককে বুঝাতে পারেন তাহলে আপনি মোটিভেশনাল ভিডিও বানাতে পারেন কারণ হতাশার সময় একটু মোটিভেশনাল কথাবার্তা শুনলে সবারই মন ভালো হয়ে যায়। তাই ইউটিউবে এরকম অনেকে আছে যারা মটিভেশনাল ভিডিও বানিয়ে প্রচুর ইনকাম করে।

ইউটিউবে এরকম অনেক ক্যাটাগরি খুঁজে পাওয়া যাবে ভিডিও বানানোর জন্য। আর যে ধরনের ভিডিও মানুষের কাজে লাগবে ওই ভিডিও ইউটিউবে বেশি ফেমাস হয়ে যায়।

তবে হ্যাঁ আপনাকে অবশ্যই ইউটিউব এর রুলস আনুযায়ি কাজ করতে হবে আর যদি আপনি কোন প্রকার ঝামেলাযুক্ত কাজ কারার চেষ্টা করেন তাহলে ইউটিউব আপনার ইউটিউবিং করার শখ চিরতরে মিটিয়ে দিবে।

এখন আপনার কাছে যদি কম্পিউটার বা ভিডিও করার জন্য ভালো ক্যমেরা না থাকে তাহলে আপনি যে ফোনটি দিয়ে আমার এই আর্টিকেলটি পড়ছেন সেটা দিয়েই ভিডিও বানিয়ে ইউটিউবে আপলোড করতে পারবেন, আর ইউটিউব কখনোই বলে নাই যে আপনার মোবাইল দিয়ে বানানো ভিডিও তারা নিবে না বা ইউটিউবে আপলোড করা যাবে না।

তবে মোবাইল দিয়ে ভিডিও এডিট ও ভিডিও বানানো কিছুটা ঝামেলার ব্যপার এবং অনেকটা সময় লাগবে আর কম্পিউটার দিয়ে যতটা প্রফেশনাল মানের এডিটিং আপনি করতে পারেন ততটা প্রফেশনাল মানের এডিটিং আপনি মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন না। তাহলে কি আর করা, যতদিন না ভালো টুলস কিনতে পারছেন ততদিন না হয় মোবাইল দিয়ে কাজ চালিয়ে নিন আর ইউটিউব থেকে প্রথম পেমেন্ট পাওয়ার পর  ভালো টুলস কিনে নিবেন আর তখন আরও ভালো করে ভিডিও বানাবেন।

প্রথম প্রথম ভিডিও আপলোড করার পর যদি ভালো ভিউ না হয় তাহলে হতাশ হবেন না ধৈর্য ধরে ভিডিও আপলোড করতে থাকবেন আর ভিডিওতে প্রচুর এসইও করবেন। এসইও হলো আপনি আপনার ভিডিওটি ইউটিউবের কাছে সাবমিট করছেন মানে যখন কোন লোক ইউটিউবে ঢুকে কিছু সার্চ করবে তখন যাতে সে আপনার ভিডিওটি সবার আগে দেখতে পায়।

আপনার ইউটিউব ভিডিওতে এসইও করার জন্য আপনাকে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হবে। কিওয়ার্ড হলো ইউটিউবে লোক কোন কিছু সার্চ করলে কি লিখে সার্চ করে সেই শব্দগুলো এবং সেই মতো আপনি আপনার ভিডিওটির থাম্বনেইল ও টাইটেল দিবেন ফলে আপনার ভিডিওটি সার্চ রেজাল্ট এ দেখাবে ও অধিক ভিউ পাওয়ার একটা সম্ভাবনা থাকবে ।

তাই আপনাকে আপনার ভিডিওতে অধিক ভিউ পাওয়ার জন্য আবশ্যই এসইও করতে হবে। কিওয়ার্ড রিসার্চ করার জন্য অনেক টুলস আছে তা থেকে যেকোন একটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে সবচেয়ে বড় এসএইও হচ্ছে আপনি লোকের জন্য ভিডিও বানাবেন এবং ভিডিও এর মাধ্যমে তাদের চাহিদা পুরন করবেন।

যখন আপনার ভিডিও তাদের কাজে লাগবে তখন এমনই আপনার ভিডিওতে ভিউ হবে। তাই যদি ইউটিউবং করার চিন্তা থাকে তাহলে আজ থেকেই শুরু করুন। আজ এই পর্যন্তই সবাই ভাল থাকবেন।

লিখেছেনঃ আরাফাত হোসেন।

সম্পর্কিত আর্টিকেল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button

অ্যাডব্লকার ডিটেক্টেড

আপনি সম্ভবত অ্যাডব্লকার ব্যবহার করছেন। আমাদের সাইট ভিজিট করতে চাইলে অবশ্যই অ্যাডব্লকার ডিজেবল করতে হবে।