মোবাইল রিভিউরিভিউ

এক দুর্দান্ত ফ্ল্যাগশিপ গেমিং ফোন। Vivo iQOO 9 pro স্পেসিফিকেশন


আসসালামু আলাইকুম! আজকে আমরা Vivo iQOO 9 pro এর বিস্তারিত জানব এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে।

Vivo কোম্পানি বিশ্ববাজারে নিয়ে এসেছে এক দুর্দান্ত ফ্ল্যাগশিপ গেমিং ফোন। যাতে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮ জেন ১ ব্যবহার করা হয়েছে। এটি একটি গেমিং প্রসেসর।

যারা গেমার আছেন তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেল। আশা করি আপনি সম্পূর্ণ পড়বেন আর আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবেন। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক আজকের বিষয় Vivo iQOO 9 pro এর স্পেসিফিকেশন।

iQoo 9 pro মোবাইল পরিচিতিঃ

Vivo iQOO 9 pro এই ফোনটি বাজারে আসার ঘোষণা পেয়েছে ০৫ জানুয়ারি ২০২২ সালে। আর এই ফোনটি বাজারে এসেছে ১২ জানুয়ারি ২০২২

আরও পড়ুনঃ  Vivo iQOO Z6 Pro 5G - দুর্দান্ত গেমিং ফোন। বাংলাদেশ দাম কত?

Vivo iQOO 9 pro ফোনটি তৈরি করেছে চাইনা কোম্পানি ভিভো। মোবাইল ফোনটির মডেল হচ্ছে- V2172A,I2022।

ফোনটির নেটওয়ার্ক এবিলিটিঃ

Vivo iQOO 9 pro ফোনে নেটওয়ার্ক টেকনোলজি হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে ২জি,৩জি,৪জি এমনকি এই ফোনে ৫জি নেটওয়ার্ক স্পীড ও পাবেন। ফোনটিতে জিপিআরএস আর ইডিজিই রয়েছে।

Vivo iQOO 9 pro বডি ডিটেইলসঃ

Vivo iQOO 9 pro এ এলটিপিও এমোলেড ক্যাপাসিটিভ টাচ স্ক্রীন দ্বারা গঠিত। এই ফোনে ১৬ মিলিয়ন কালার ব্যবহার করা হয়েছে। Vivo iQOO 9 pro এ ডিসপ্লে সাইজ ৬.৭৮ ইঞ্চি। যার রেজুলেশন ১৪৪০ × ৩২০০ পিক্সেল এবং ৫১৮ পিপিআই ডিনসিটি।

এছাড়া ফোনটিতে রয়েছে মাল্টি-টার্চ এর সুবিধা। Vivo iQOO 9 pro এ রিফ্রেশ রেড হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে ১২০ হার্জ।

Vivo iQOO 9 pro এর ক্যামেরাঃ

Vivo iQOO 9 pro এ প্রাইমারি ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। তাছাড়া ১৬ মেগাপিক্সেল টেলিফোটো ক্যামেরা। Vivo iQOO 9 pro এর মধ্যে ৫০ মেগাপিক্সেল এর আল্টা-ওয়াইড ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে।

সেলফি ক্যামেরা হিসেবে এতে আছে ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ফোনটির মেইন ক্যামেরা দিয়ে 8ক (৮কে) রেজুলেশন এ ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন তাছাড়া ১০৮০ পিক্সেল ৩০ এফপিএস এ ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন।

Vivo iQOO 9 pro এর পারফরম্যান্সঃ

Vivo iQOO 9 pro এ ব্যবহৃত হয়েছে সর্বকালের সেরা গেমিং প্রসেসর কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮ জেন ১ যা ৪ নেনোমিটার টেকনোলজির দ্বারা গঠিত।

ফোনটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে এন্ড্রয়েড ১২ ও ফানটাচ ১২ (গ্লোবাল) অরজিন ওএস ওকেন (চিনা)।

ফোনটিতে জিপিইউ হিসেবে থাকছে এড্রেনো ৭৩০. Vivo iQOO 9 pro এ সিপিইউ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে অক্টা-কোর (১xএক্স৩.০০ গিগাহার্জ কোরটেক্স এক্স ২, ৩xএক্স২.৫০ গিগাহার্জ কোরটেক্স এ ৭১০ এবং ৪xএক্স১.৮০ গিগাহার্জ কোরটেক্স এ ৫১০)

আরও পড়ুনঃ  বাংলাদেশ বাজারে আসতে চলেছে Xiaomi POCO M5 Pro 5G, জানুন দাম ও স্পেসিফিকেশন

Vivo iQOO 9 pro এর মেমোরিঃ

Vivo iQOO 9 pro এ র‍্যাম হিসেবে আছে ৮জিবি/১২জিবি। তার সাথে ইন্ট্রারনাল স্টোরেজ হিসেবে ২৫৬জিবি/৫১২জিবি রয়েছে। কিন্তু ফোনটিতে কোনো মেমোরি কার্ড স্লোট নেই। ফলে আপনি অন্য এক্সটা মেমোরি ব্যবহার করতে পারবে না।

Vivo iQOO 9 pro এর ব্যাটারিঃ

Vivo iQOO 9 pro এ নোন-রিমোব্যাল লি-পো ৪৭০০ mAh ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে বেশ টাইম ধরে গেমিং করতে পারবেন। তাছাড়া এই ফোনে ব্যবহৃত হয়েছে ১২০ ওয়াট এর ফ্রাস্ট চার্জিং। যা আপনার ফোনটিকে ৫০% চার্জ হতে সময় নেয় ৮ মিনিট আর ১০০% চার্জ হতে ২০ মিনিট সময় লাগে। আপনি যদি গেমিং ব্যাক্তি হয়ে থাকেন তো আপনার জন্যা এই ফোনটি পারফেক্ট হবে।

Vivo iQOO 9 pro এর দামঃ

১২জিবি/৫১২জিবি এর দামঃ ৮৭,৪৯০
৮জিবি/২৫৬জিবি এর দামঃ ৮১,৪৯০

Vivo iQOO 9 pro নিয়ে আমাদের শেষ কথাঃ

Vivo iQOO 9 pro মোবাইলটি আপনাদের কাছে কেমন লেগেছে? কমেন্টে জানাবেন। আর পরবর্তীতে কোন ধরনের আর্টিকেল চান সেটিও আমাদের জানাতে পারেন। প্রযুক্তির সকল প্রকার আপডেট পেতে বাংলা টেকস্পট এর সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

সম্পর্কিত আর্টিকেল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

অ্যাডব্লকার ডিটেক্ট হয়েছে!

মনে হচ্ছে আপনি অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছেন। আমাদের সাইট ভিজিট করার জন্য আপনাকে অ্যাড ব্লকার বন্ধ করতে হবে। যদি অ্যাডব্লকার ব্যবহার না করেন, তাহলে পেজটি রিফ্রেশ করুন।